ChannelPadma Privacy Policy

বোয়ালমারীতে ধর্ষণের পর স্কুল ছাত্রীকে হত্যা !

বোয়ালমারীতে ধর্ষণের পর স্কুল ছাত্রীকে হত্যা !
CHANNEL PADMA bd 2022

বোয়ালমারীতে ধর্ষণের পর স্কুল ছাত্রীকে হত্যা ! : ফরিদপুরের বোয়ালমারীতে ফারিহা খানম (১২) নামে এক স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণ শেষে গলা টিপে হত্যার অভিযোগ উঠেছে রাসেল সিকদার (১৮) নামে এক যুবকের বিরুদ্ধে।

নিহত স্কুল ছাত্রী স্থানীয় নড়াইল এম এ মান্নান উচ্চ বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী এবং উপজেলার রূপাপাত ইউনিয়নের ইছাডাঙ্গা গ্রামের মোক্তার হোসেনের মেয়ে।

ধর্ষণকারী রাসেল সিকদার ওই গ্রামের মানোয়ার সিকদারের ছেলে। সম্পর্কে তারা চাচাতো ভাই-বোন। রবিবার (১৪ আগস্ট) রাতে এ ঘটনা ঘটে।

সোমবার লাশ ময়নাতদন্তের জন্য ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। পুলিশ রাসেলকে আটক করেছে।

এলাকা সূত্রে জানা যায়, রবিবার বিকেলে ফারিহার চাচাতো ভাই রাসেল সিকদার (১৮) তার চাচতো চাচা মোক্তার হোসেনের মুদি দোকান থেকে দেড়শ টাকার সদায় বাকিতে ক্রয় করে।

সন্ধ্যার পর রাসেল বাড়ি গিয়ে ফারিহাকে ডেকে ওই বাকি টাকা নিয়ে যেতে বলে। ফারিহা সরল মনে টাকা আনতে গেলে রাসেল তাকে বাথরুমে নিয়ে ধর্ষণ শেষে গলা টিপে এবং গলায় ওড়না পেঁচিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে।

পরিবারের লোকজন অনেক খোঁজাখুঁজির পর রাসেলদের বাথরুম থেকে ফারিহাকে উদ্ধার করে পার্শ্ববর্তী আলফাডাঙ্গা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগে নিয়ে গেলে সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। খবর পেয়ে বোয়ালমারী থানা পুলিশ অভিযুক্ত রাসেলকে আটক করে।

ফারিয়ার বাবা মো. মুক্তার শিকদার বলেন, রাসেল খুবই বখাটে প্রকৃতির ছেলে। এর আগে সে একবার পরিবারকে না জানিয়ে বিয়ে করলে সে বিয়ে টেকেনি।

একমাত্র ছেলে উচ্ছৃঙ্খল হওয়ায় রাসেলের বাবা-মা রাসেলের সাথে থাকেন না। আমার দোকানে ১৫০ টাকা বাকি খেয়ে আর টাকা পরিশোধ করেনা।

রবিবার সন্ধ্যায় আমার মেয়েকে টাকা দেওয়ার কথা বলে ঘরে ডেকে নেয়। পরে হাত-পাঁ বাঁধা অবস্থায় রাসেলের ঘরের বাথরুম থেকে মেয়েকে উদ্ধার করি। মেয়ে হত্যাকারী রাসেলের ফাঁসি চেয়েছেন তিনি।

ফরিদপুরের সহকারী পুলিশ সুপার (বোয়ালমারী-আলফাডাঙ্গা-মধুখালী সার্কেল) সুমন কর বলেন, নিহতের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্ত শেষে হত্যাকাণ্ডের প্রকৃত রহস্য জানা যাবে। এ ব্যাপারে মামলার প্রস্তুতি চলছে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.