বুধবার, ২৫ মে ২০২২, ০৭:৩২ পূর্বাহ্ন

ক্লাস শুরু হতে না হতেই শিক্ষার্থীদের পরীক্ষার ধকল

পদ্মা ডেস্ক
  • আপডেটের সময় : রবিবার, ২০ মার্চ, ২০২২

ফরিদপুরে পরিপূর্ণভাবে ক্লাস শুরু হতে না হতেই পরীক্ষার ধকলের মধ্যে পড়েছে শহরের আদর্শ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্রীরা।

রবিবার (২০ মার্চ) থেকে বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণি থেকে শুরু করে দশম শ্রেণির ছাত্রীদের সব বিষয়ে পরীক্ষা নেওয়া হচ্ছে। এ ঘটনায় কোন কোন অভিভাবকদের মনে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে ওই বিদ্যালয়ের কয়েকজন শিক্ষার্থীর অভিভাবক বলেন, করোনা মহামারীর প্রাদুর্ভাব কমে আসায় বিদ্যালয়ে গত ২২ ফেব্রুয়ারি থেকে সীমিত ভাবে পাঠদান শুরু হয়। ওই সময় সপ্তাহে একদিন করে বিভিন্ন শ্রেণির পাঠদান শুরু হয়। পরিপূর্ণ পাঠ দান শুরু হয়েছে গত ১৫ মার্চ থেকে।

১৫ মার্চ পূর্ণাঙ্গ ক্লাস শুরু হলেও শিক্ষার্থীরা ১৫ ও ১৬ এই দুই দিন বিদ্যালয়ে পাঠ নেওয়ার সুযোগ পেয়েছে। ১৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর জন্মদিনে বিদ্যালয় সমূহে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়। পরদিন ছিল শুক্রবার সাপ্তাহিক বন্ধের দিন। শনিবার পবিত্র শবেবরাতের জন্য বন্ধ ছিল।

অথচ ফরিদপুর শহরের ঝিলটুলী মহল্লায় ১৯২৭ সালে স্থাপিত ফরিদপুর আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে রবিবার থেকে ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণি পর্যন্ত প্রত্যেক বিষয়ে পরীক্ষা নেওয়া শুরু করেছে। এ বাবদ প্রত্যেক শিক্ষার্থীর কাছ থেকে ৩শ ৫০ টাকা করে ফি নেওয়া হয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জায়নুল আবেদীন বলেন, যে পরীক্ষা নেওয়া হচ্ছে তা প্রস্তুতিমূলক। শিক্ষার্থীরা দীর্ঘদিন ধরে পড়াশোনা থেকে বাইরে রয়েছে। করোনাকালীন সময়ে আমরা শিক্ষার্থীদের সিলেভাস দিয়ে দিয়েছি। শিক্ষার্থীদের এভাবে প্রস্তুতিমূলক পরীক্ষা নেওয়ার সিদ্ধান্ত আমরা অনেক আগেই নিয়েছি। মূলত শিক্ষার্থীদের পড়াশোনায় ফিরিয়ে আনা ও বইমুখী করার জন্য প্রস্তুতিমূলক পরীক্ষা নেওয়া হচ্ছে।

পরিপূর্ণ পাঠদান শুরু হওয়ার সাথে সাথে পরীক্ষা না নিয়ে কিছুদিন পাঠদান দিয়ে রোজার মধ্যে কিংবা ঈদের পরে পরীক্ষা নিলে ভালো হতো কি না জানতে চাইলে জায়নুল আবেদীন বলেন, শুধু আমরা একা নই, ফরিদপুর শহরের আরো কয়েকটি সারদা সুন্দরী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, ফরিদপুর পুলিশ লাইনস, ফরিদপুর উচ্চ বিদ্যালয়ও পরীক্ষা নিচ্ছে। তিনি দাবি করে বলেন, কয়েকজন অভিভাবক তার বিরোধীতা করছে, তারাই এ বিষয়টিকে জটিল করে তুলছেন।

তবে সারদা সুন্দরী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, ফরিদপুর পুলিশ লাইনস, ফরিদপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক, সহকারি প্রধান শিক্ষক ও সহকারি শিক্ষকদের সাথে কথা বলে জায়নুল আবেদীনের বক্তব্যের যতার্থতা পাওয়া যায়নি।

ওই তিনটি বিদ্যালয় সুত্রে জানা গেছে, তারা শুধু ২০২২ সালে যে সব শিক্ষার্থী এসএসসি পরীক্ষা দেবে তাদের একটা প্রস্তুতিমূলক পরীক্ষা নিচ্ছেন বা নিয়েছেন। এর মধ্যে ফরিদপুর উচ্চ বিদ্যালয় এ পরীক্ষা নিয়েছে বিনা ফিতে। ওই তিনটি বিদ্যালয়ের কোনটিতেই ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা নেওয়া হচ্ছে না।

ওই তিন স্কুলের শিক্ষকরা জানান, পাঠদান চালিয়ে নেওয়ার পর যদি ২০ রমজান পর্যন্ত ক্লাস নেওয়া সম্ভব হয় তাহলে ১৫ রমজান থেকে সুযোগ পেলে এ জাতীয় একটি প্রস্তুতিমূলক পরীক্ষা তারা নেবেন। সম্ভব না হলে পরীক্ষাটি নেওয়া হবে ঈদুল ফিতরের পর।

এ ব্যাপারে জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা বিষ্ণুপদ ঘোষালের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে তিনি বলেন, আদর্শ বালিকা বিদ্যালয় কি কারনে বিদ্যালয় খোলার সাথে সাথেই সব শ্রেণির পরীক্ষা নেওয়া শুরু করলো তা তিনি জানেন না। বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ তাকে এ ব্যাপারে কিছু বলেনি।

তিনি বলেন, ওই বিদ্যালয়ের কোন অভিভাবক এ ব্যাপারে তার কাছে কোন অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে বিষয়টি খতিয়ে দেখবেন-বলে আশ্বাস দেন শিক্ষা কর্মকর্তা।

এই পোস্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর